মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

নদ-নদী

মুক্তাগাছা উপজেলায় বেশ কয়েকটি নদী আছে । এক সময় বজরাসহ বিভিন্ন বড় বড় নৌকা চলার উপযোগী পরিবেশ ছিল নদীগুলোতে । তবে আঠারো শতকের ভূমিকম্পে ময়মনসিংহ অঞ্চল উঁচু হয়ে যায় । যৌবন হারায় বহ্মপুত্রসহ এ অঞ্চলের সকল নদ নদী। তবুও কালের সাক্ষী হয়ে টিকে আছে কয়েকটি নদী । বিভিন্ন প্রকার দখলে দূষণে নদীর জীবন যৌবন সবই বিলীন হয়ে গেছে । চারপাশ থেকে গিলে খাচ্ছে নদীর জমি। বিভিন্ন জায়গায় বাধঁ দিয়ে ও ছোট ছোট কালর্ভাট করে কোথাও কোথাও নদীর চিহ্ন নিশ্চিন্ন করে ফেলা হয়েছে ।

 

মুক্তাগাছার নদীগুলো হলোঃ আয়মন নদী, সুতিয়া নদী, সিরখালী নদী, বানার নদী, থাডুকুড়া নদী ও গৌড়ি নদী ।

 

সিরখালি নদীঃ জামালপুর জেলার জামালপুর সদর উপজেলার পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদী থেকে উৎপত্তি লাভ করে ময়মনসিংহ সদর, মুক্তাগাছা উপজেলা অতিক্রম করে ফুলবাড়িয়া উপজেলার কুশমাইল ইউনিয়নে আখিলা নদীতে পতিত হয়েছে। এই নদীতে জোয়ারভাটা খেলে না। তবে বর্ষাকালে নদীটিতে বন্যা হয়।

 

বানার নদীঃ  বাংলাদেশের উত্তর-কেন্দ্রীয় অঞ্চলের জামালপুর ও ময়মনসিংহ জেলার একটি নদী। নদীটির দৈর্ঘ্য ৯৬ কিলোমিটার, গড় প্রস্থ ৪৩ মিটার এবং নদীটির প্রকৃতি সর্পিলাকার। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড বা "পাউবো" কর্তৃক বানার নদীর প্রদত্ত পরিচিতি নম্বর উত্তর-কেন্দ্রীয় অঞ্চলের নদী নং ৪৪। স্থানীয়ভাবে নদীটি জামালপুর সদর উপজেলায় বানার, ফুলবাড়িয়া উপজেলায় কলমদারী এবং ত্রিশাল উপজেলায় বানার নামে পরিচিত।

 

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)